ঈগল দিয়ে ড্রোন শিকার!

ইউএভি (Unmanned Aerial Vehicle) কে একদিকে যেমন মানব-কল্যাণমূলক বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা যায়, তেমনি মানুষের জন্য ক্ষতিকর বিভিন্ন কাজেও এর ব্যবহারের নজির কম নেই। কিন্তু জিনিসটি যদি মাটিতে থাকতো তাহলে থামানো যতটা সহজ হতো, সেটি আকাশে থাকায় তাকে থামানো ঠিক ততটাই কঠিন। আর সেই ইউএভি যদি কোনো সংরক্ষিত এলাকায় ঢুকে ছবি তুলতে শুরু করে, কোনো এয়ারক্রাফটের ওড়ার পথে চলে আসে কিংবা কোনো অস্ত্র বহন করে তাহলে তো কথাই নেই। তখন সেসব ইউএভিকে থামানো আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর জন্য ফরজ হয়ে দাঁড়ায়। এজন্য তারা যেসব পন্থা অবলম্বন করে তার মাঝে রয়েছে ড্রোনের সিগনাল জ্যাম করে দেয়া কিংবা সেটিকে সরাসরি গুলি করা। এতে হয়তো ইউএভিটি নষ্ট হতে পারে, কিন্তু নিচে থাকা মানুষজনের উপর সেটি পড়ে প্রাণহানির আশংকাও উড়িয়ে দেয়া যায় না।
1
এ সমস্যা সমাধানেই একেবারে প্রাকৃতিক এক উপায় নিয়ে এসেছে নেদারল্যান্ডের কোম্পানি ‘Guard from Above’। এ লক্ষ্যে তারা বেছে নিয়েছে শিকারী পাখি ঈগলকে। পাহাড়াদার কুকুরের মতোই পুরষ্কার হিসেবে প্রাপ্ত মাংসের বিনিময়ে ছোট আকারের ইউএভিকে নিজের ধারালো থাবার সাহায্যে কুপোকাত করে ফেলছে পাখিটি। আর প্রচলিত পদ্ধতিগুলোতে যেখানে জনসাধারণের ক্ষতির ভয় থাকতো, ঈগল সেখানে ইউএভিকে টেনে-হিচড়ে কোনো জায়গায় নিয়ে যাচ্ছে। ফলে ক্র্যাশ ল্যান্ডিংয়ের ভয়ও থাকছে না আর। কোম্পানিটি এ পদ্ধতির গালভরা এক নামও দিয়েছে, ‘উচ্চ প্রযুক্তিগত সমস্যার জন্য নিম্ন প্রযুক্তিভিত্তিক সমাধান’। আর কিছু ফিল্ড টেস্টের পর দেশটির পুলিশ বিভাগও এসব ঈগলকেই বেছে নিতে যাচ্ছে।

Facebook Comments
Please follow and like us:
250

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!